শাহবাগ

শাহবাগ নিয়ে টেলিফোনে সুমন…

এত দূর থেকে শাহবাগের উত্তাপ টের পেলেন কী করে?
খবর থেকে জানতে পারলাম, হাজার হাজার ছেলেমেয়ে জমায়েত হয়েছে। প্রতি মুহূর্তে কত কত মানুষ নতুন করে যোগ দিচ্ছে। শাহবাগ পরিস্থিতি নিয়ে প্রথমত জানতে পেরেছি বাংলাদেশের দু-একজন বন্ধুর কাছ থেকে। আমার একাধিক প্রিয় মানুষ বাংলাদেশে আছেন। তারা আমাকে বিষয়টি সম্পর্কে জানিয়েছেন। এছাড়া ফেসবুক থেকেই এ আন্দোলন সম্পর্কে জানতে পারি। আমাদের এখানকার পত্রপত্রিকায় এ ঘটনা বিশেষ গুরুত্ব পাচ্ছে না।

শাহবাগের আন্দোলনে যোগ দেয়ার সম্ভাবনা আছে?
না, না। দেখুন, আমি গান গাই, গান বানাই, বাজনা বাজাই। আমি গানের লোক। গান বানানোই আমার কাজ। এটাই আমার হাতিয়ার। আমার ইচ্ছা আছে, আরো এমন অনেক গান তৈরি করার, যেটা মানুষের কাজে লাগে। আমার গান যদি একজন মানুষেরও কাজে লাগে, তাহলে আমার মানবজনম সার্থক। বাঙালি জন্ম সার্থক।

শাহবাগের এ তারুণ্য আপনাকে কতখানি নাড়া দিয়েছে?
সাংঘাতিক। সাংঘাতিক। সাংঘাতিক। মনে হয় যেন এ দিনটার জন্যই আমি এত বছর বসে ছিলাম। রবীন্দ্রনাথের একটি গান আছে, ‘এতদিন যে বসে ছিলেম/পথ চেয়ে আর কাল গুনে/দেখা পেলেম ফাল্গুনে।’ এত দিন তো বসেই ছিলাম এর জন্য। আজ আমার ৬৪ বছর বয়স। বাংলাদেশের মুক্তিযুদ্ধ যখন হয়, তখন বয়স ২২ বছর। তখন থেকে মনে মনে আমি বাংলাদেশের নাগরিক। তরুণরা এক দিন উঠে দাঁড়াবে। নস্যাৎ করে দেবে বুড়োদের অনেক কিছু। এমন দিনের জন্যই তো অপেক্ষায় থাকা।

আন্দোলনকারী তরুণদের জন্য কোনো বার্তা আছে?
ওদের জন্যই তো বসে ছিলাম। আজ এতগুলো বছর বাংলাদেশের বিভিন্ন ক্ষেত্রে নানা উত্থান-পতন ও পরিবর্তন দেখেছি। মনের ভেতরে গুমরে গুমরে উঠছিল হতাশা। কিন্তু একটা বিশ্বাস ছিল, না, বাংলাদেশ এমন দেশ, যেখানে ‘প্রাণ’ কখনো দমিয়ে রাখা যায় না। এমন শক্তি নেই, যা বাংলাদেশের ‘প্রাণ’ রুখে দিতে পারে। সম্ভব নয়। বাংলাদেশের যে তারুণ্য, যে প্রাণ, তাকে নিস্তেজ রাখা সম্ভব নয়। এ আশা আমার বরাবর ছিল। আমিই কিন্তু পশ্চিমবঙ্গের একমাত্র লোক, যে একুশে ফেব্রুয়ারি নিয়ে গান তৈরি করেছে।
আমি খবর পাচ্ছি, তরুণ-তরুণীরা রাস্তায় আছেন, ছুটছেন, কাজ করছেন, অঙ্গীকারবদ্ধ হয়ে দাঁড়িয়ে আছেন। তাই আমি দেখতে পাচ্ছি, আমার বাঙালি জনম সার্থক। এবার আমি মরতেও পারি। এখন যদি মরি, এই জেনে মরব যে, তারুণ্যের জাগরণ ঘটে গেছে বাংলাদেশে। এটা একটা নতুন ইতিহাস। বাংলাদেশের তরুণরা আজ ইতিহাস রচনা করেছে। জয় বাংলা।


সাক্ষাত্কার গ্রহণ করেন পৃথ্বী সাহা বাপ্পা
সৌজন্যেঃ-

বনিক বার্তা (১০ই ফেব্রুয়ারী, ২০১৩)

It's only fair to share...Share on FacebookTweet about this on TwitterGoogle+
Website designed and developed by Code Flavor

Facebook

Get the Facebook Likebox Slider Pro for WordPress