গণহত্যার নাম ভূপাল

সারি সারি
সারি সারি মরা মানুষ
দৃষ্টিহীন মানুষ
নিঃশ্বাস বন্ধ হয়ে যাওয়া
ছটফট করে করে মরে যাওয়া
বমি করে করে মরে যাওয়া
মানুষ মানুষ মানুষ!

সারি সারি
সারি সারি অন্ধ লোক
দু’চোখ খুবলে নিয়ে চলে গেছে
মিথাইল আইসোসায়ানেট
মার্কিন আইসোসায়ানেট
মার্কিন ভূপাল সায়ানেট
ভূপাল…

মার্কিন পুঁজি আর দেশি দালাল
দেশি পুঁজিপতি আর বিদেশী পুঁজ দিয়ে তৈরি
গণহত্যার নাম ভূপাল ।।।

মার্কিন কণ্ঠেঃ
‘এ বড় অন্যায় কথা যা শুনলেন
সব মিছে বাতুলতা
আমরা তো দুনিয়া ভালোই চালাই
গরীব দেশগুলোকে আমরা খাওয়াই
মানে গরীব দেশগুলোর বড় লোকদের
তাদেরই খাতিরে কিছু কারখানা খুলি
ভাগাভাগি করে ভরি মুনাফার ঝুলি
এদেশী পুঁজিপতিরা এটাই চায়
আমাদের এঁটোকাঁটা তারাই খায়
ভূপালের ব্যাপারটা দুর্ঘটনা
সচরাচর একদম হয় না
তাছাড়া এ কাজে বাপু ঝুঁকি থাকবেই
আজ নয় কাল কিছু লোক মরবেই
কিছু লোক… ’

সারি সারি
সারি সারি অন্ধ লোক
দু’চোখ খুবলে নিয়ে চলে গেছে
হাজারে হাজার খুন করে গেছে
মিথাইল আইসোসায়ানেট
মার্কিন আইসোসায়ানেট
মার্কিন ভূপাল সায়ানেট
ভূপাল…

মার্কিন পুঁজি আর দেশি দালাল
দেশি পুঁজিপতি আর বিদেশী পুঁজ দিয়ে তৈরি
গণহত্যার নাম ভূপাল
গণহত্যার নাম ভূপাল
গণকবরের নাম ভূপাল।

Audio: From the collection of Somen Ray

প্রেক্ষাপটঃ

bhupal1

ভারতের ভূপালে দোসরা ডিসেম্বর দিবাগত রাত- অর্থাৎ তেসরা ডিসেম্বরের প্রথম প্রহরে মার্কিন মালিকানাধীন ইউনিয়ন কার্বাইড কীটনাশক কারখানার ভূর্গভস্থ মজুত ট্যাংক ফেটে গেলে সেখান থেকে বের হতে শুরু করে ৪০ টন পরিমাণ বিষাক্ত গ্যাস মিথাইল আইসোসায়ানেট।

ইউনিয়ন কার্বাইড ইন্ডিয়ার ব্যবস্থাপনা পরিচালক ওয়াই পি গোখেল জানান অতিরিক্ত চাপের মুখে ট্যাংকের একটি ভালভ্‌ ভেঙে গেলে ভেতর থেকে গ্যাস বেরতে শুরু করে।

নয় লক্ষাধিক বাসিন্দার ঘনবসতির শহর ভূপালের আকাশে ছড়িয়ে পড়ে মারণাত্মক রাসয়নিকের মেঘ।
প্রায় ৫ লক্ষ মানুষ ওই গ্যাসের কবলে পড়ে। প্রাণ হারায় কয়েক হাজার মানুষ। গ্যাসের ওই মেঘ ভবিষ্যত প্রজন্মের জন্য রেখে যায় মারাত্মক রোগব্যাধির অভিশাপ।

কী ঘটেছিল তেসরা ডিসেম্বর দুর্ঘটনা কালোরাতে ?

bhupal2

রাত বারোটার পর:

ভূপালের বেশিরভাগ বাসিন্দা গভীর ঘুমে। ইউনিয়ন কার্বাইড কারখানার পাঁচিলের বাইরে চালাঘরগুলোর বাসিন্দাদের জন্যও সে রাতটা ছিল আর পাঁচটা রাতের মতই।

সেখানে কারখানা তৈরি হয়েছে ১৯৬৯ সালে – চরম বিপদজনক রাসয়নিক মিথাইল আইসোসায়ানেট ব্যবহার করে কীটনাশক উৎপাদন করছে তারা।

কারখানার গায়ে লাগোয়া বস্তিগুলোতে বাস বহু মানুষের। কাছেই ভূপাল শহরের পুরনো এলাকাতেও থাকে হাজার হাজার মানুষ।

রাত প্রায় একটা:

এই সময়ই কারখানা এলাকায় কিছু বস্তিবাসীর প্রথম নাকে আসে একটা দুর্গন্ধ- তাদের চোখ জ্বলতে শুরু করে। কেউ কেউ বলেন ”মনে হচ্ছে ধারেকাছে কেউ লংকা পোড়াচ্ছে।”

অবস্থা আরো খারাপের দিকে মোড় নেয় – গন্ধ আরো জোরালো হয়ে ওঠে। মানুষ অল্পক্ষণের মধ্যেই নিঃশ্বাস নিতে কষ্টের কথা বলতে শুরু করে। অনেকে বমি করতে শুরু করে।

141202180838_bhopal_gas_tragedy_1984_640x360_afp

শহর ও শহরতলিতে ভীতি ও বিশৃঙ্খলা ছড়িয়ে পড়ে। হাজার হাজার মানুষ বাড়িঘর ছেড়ে পালাতে শুরু করে।
”দেখা যায় মানুষ মাটিতে লুটিয়ে পড়ছে – তাদের মুখ দিয়ে ফেনা বেরচ্ছে – অনেকে চোখ জ্বালার কারণে চোখ খোলা রাখতে পারছে না।”

হাজেরা বাই পাঁচ বছর আগে বিবিসিকে বলেন, সেই ভয়ঙ্কর রাতের স্মৃতি তিনি কখনও ভুলবেন না – ”মাঝরাত নাগাদ আমার ঘুম ভেঙে গেল- দেখলাম মানুষজন রাস্তায় নেমে এসেছে- যে কাপড়ে ঘুমোচ্ছিল সেই কাপড়েই তারা বেরিয়ে এসেছে – কারো কারো গায়ে শুধু অর্ন্তবাস।”

ভয়ে লোকজন এলাকা ছেড়ে পালাতে শুরু করেছে আর তা করতে গিয়ে আরো গ্যাস নিঃশ্বাসের সঙ্গে টানছে।
”বিষাক্ত ওই গ্যাস ছিল বাতাসের থেকে ভারী- কাজেই মজুত ট্যাংক থেকে বেরন গ্যাসে ঘন মেঘের আস্তরণ তৈরি হয়,” ২০০৯ সালে ওই কালোরাত্রির কথা বর্ণনা করতে গিয়ে জানান সেসময় ভূপালের পুলিশ প্রধান স্বরাজ পুরি- ”ওই গ্যাসের মেঘ কারখানার চারপাশের বাতাসে ভর করে নিঃশব্দে এগিয়ে চলে।”

ভোররাত আড়াইটা:

কারখানায় বিপদসংকেত সাইরেন বেজে ওঠে। লোকে চিৎকার করতে থাকে, ”কারখানা থেকে গ্যাস লিক করছে।”

141202180437_bhopal_gas_tragedy_1984_640x360_afp

”আমাদের দম বন্ধ হয়ে আসে- চোখ জ্বলতে থাকে। ঘন গ্যাসের ধোঁয়ার মধ্যে দিয়ে তখন রাস্তা দেখতে পাচ্ছি না, সাইরেনের শব্দে কান ফেটে যাচ্ছে- কোনইদকে দৌড়ব কিছুই আমরা বুঝে উঠতে পারছি না- সকলেই উদভ্রান্ত।” ১৯৮৪-র ওই ভয়াবহ দুর্ঘটনার পর বিবিসিকে বলেন এলাকার বাসিন্দা আহমেদ খান।

মিঃ খান জানান মানুষ তখন ভয়ে দিশেহারা হয়ে ছুটছে।
”মা জানে না তার সন্তান মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়েছে, সন্তান জানে না তার মাকে সে হারিয়েছে। পুরুষরা জানে না তাদের গোটা পরিবার নিশ্চিহ্ন হয়ে গেছে।”

সেসময় বিবিসির সংবাদদাতা মার্ক টালি তখন খবর দিচ্ছেন ”শহরের প্রধান হাসপাতাল মানুষের ভিড়ে উপছে পড়ছে, ক্রমাগত গ্যাস আক্রান্ত মানুষকে নিয়ে আসা হচ্ছে।”

”রাস্তার ওপর হাজার হাজার মরা বিড়াল, কুকুর, গরু এবং পাখির স্তুপ- শহরের মর্গ ভরে উঠছে মৃতদের ভিড়ে।”

ভোর চারটা:

141202181203_bhopal_disaster_protest_640x360_afp

ভূপালের সাবেক পুলিশ প্রধান মিঃ পুরি বিবিসিকে বলেন ভোরের আলো ফোটার সঙ্গে সঙ্গে বিপর্যয়ের ব্যাপকতা সম্পর্কে একটা স্পষ্ট ধারণা তারা পান।

”আমার ও আমার কর্মচারীদের ওপর মৃতদেহ সরানোর দায়িত্ব পড়ে। তখন বুঝতে পারি কী অবস্থা। চর্তুদিকে শুধু লাশ আর লাশ।”
”আমার মনে হচ্ছিল- হে ঈশ্বর- একী ঘটল? কী হচ্ছে- আমরা স্থবির হয়ে গিয়েছিলাম- বুঝতে পারছিলাম না কী করব- কীভাবে সব সামাল দেব?”

নিহতের সংখ্যা তখন ক্রমশই বাড়ছে। ৭২ ঘন্টায় ৮০০০-এর বেশি মানুষ মারা গেছে।
এর পরের কয়েকমাসে আরো কয়েক হাজার প্রাণহানি ঘটেছে।
সরকার দাবি করেছে বিষাক্ত গ্যাসে মোট ৫,২৯৫ জনের মৃত্যু হয়েছে, কিন্তু বেসরকারি সংস্থাগুলোর হিসাবে এই দুর্ঘটনায় মৃতের সংখ্যা বিশ হাজারের বেশি।

পরিবেশবাদীরা বলে আসছেন ওই কারখানা থেকে নির্গত বিষ এখনও এলাকার মাটি ও ভূগর্ভস্থ জলকে বিষাক্ত করছে। কিন্তু রাজ্য সরকার এই দাবি মানতে নারাজ- তাদের মতে কারখানা এলাকার জল নিরাপদ।

ভূপাল বিপর্যয় নিয়ে আন্দোলনকারী এবং ক্ষতিগ্রস্তদের নিয়ে কাজ করছেন যারা তারা দাবি করছেন ওই ঘটনার শিকার দেড় লাখ মানুষ ক্যান্সার, অন্ধত্ব, যকৃৎ ও কিডনির নানা অসুখে ভুগছেন।

তাদের প্রকাশিত নানা প্রতিবেদনে তারা তুলে ধরেছেন ভূপালের শিশুরা নানাধরনের জন্মগত পঙ্গুত্বের শিকার- ওই বিপর্যয়ের পর জন্ম নেওয়া শিশুদের স্বাভাবিক বৃদ্ধি হয়নি- তাদের অনেকে ক্যান্সার ও নানা জটিল রোগে ভুগছে।

ইউনিয়ন কার্বাইডের কারখানা এখন পরিত্যক্ত। মধ্যপ্রদেশের সরকার ১৯৯৮ সালে এই কারখানার নিয়ন্ত্রণ নিয়েছে।

ইউনিয়ন কার্বাইডের কোনো শীর্ষ কর্তাব্যক্তিকে ভূপালের ওই ঘটনার জন্য বিচারের কাঠগড়ায় তোলা যায় নি।

সংস্থার সাবেক চেয়ারম্যান, ওয়ারেন অ্যান্ডারসন, দুর্ঘটনার কয়েকদিন পরই কারখানা দেখতে ভূপালে গেলে তাকে ভারতীয় পুলিশ গ্রেপ্তার করে, কিন্তু কয়েকদিনের মধ্যেই তিনি জামিন পেয়ে যান, এবং তড়িঘড়ি ভারত ত্যাগ করেন।

তাকে সরকারিভাবে ‘পলাতক’ ঘোষণা করা হয়। তবে ভারত সরকার তাকে বিচারের জন্য ভারতে পাঠাতে যুক্তরাষ্ট্রের ওপর সেভাবে কখনও জোরেসোরে চাপ দেয় নি। মিঃ অ্যান্ডারসন এ বছর সেেপ্টম্বর মাসে মারা যান।

ভূপাল দুর্ঘটনায় জীবিতদের আইনগত প্রতিনিধি হিসাবে ভারত সরকার প্রথমে ৩.৩ বিলিয়ন ক্ষতিপূরণের আবেদন করেছিল। কিন্তু আদালতের বাইরে এক সমঝোতার মাধ্যমে ইউনিয়ন কার্বাইড ১৯৮৯ সালে ৪৭ কোটি ডলার ক্ষতিপূরণ দিয়ে দায়মুক্ত হয়।
কিন্তু আন্দোলনকারীরা সবসময়েই যুক্তি দেখিয়েছে ওই ক্ষতিপূরণ কখনই যথেষ্ট ছিল না।

তথ্যসূত্রঃ বিবিসি

It's only fair to share...Share on FacebookTweet about this on TwitterGoogle+
Website designed and developed by Code Flavor

Facebook

Get the Facebook Likebox Slider Pro for WordPress